পরিচ্ছেদ / অধ্যায় – 16

আর যে নিজেকে নির্বোধ করেছে,

সে ছাড়া ইব্রাহীম এর জীবন-পদ্ধতি হতে আর কে বিমুখ হবে ! । দুনিয়াতে তাকে আমরা মনোনীত করেছি; আর আখেরাতেও তিনি অবশ্যই সৎ কর্মশীলদের অন্যতম।

যখন তার রব তাকে বলেছিলেনঃ তুমি আনুগত্য স্বীকার করো;

সে বলেছিল:

আমি বিশ্বজগতের রবের নিকট আত্মসমর্পণ করলাম।

এবং ইব্রাহীম তার সন্তানদেরকে ও ইয়াকুবকে নির্দেশ দিলেন,

“হে আমার সন্তানেরা,
নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের জন্য জীবন বিধান মনোনীত করেছেন, সুতরাং তোমরা আত্মসমর্পণকারী না হয়ে মৃত্যুবরণ করবে না।

ইয়াকুবের যখন মৃত্যু এসেছিল তোমরা কি তখন উপস্থিত ছিলে ?

তিনি যখন সন্তানদের বলেছিলেন, ‘আমার পরে তোমরা কার ‘কর্তৃত্ব গ্রহণ করবে’ ?

তারা বলেছিলো, ‘আমরা আপনার ইলাহ ও আপনার পিতৃ পুরুষ,, ইবরাহীম, ইস্‌মাঈল,,, ও ইসহাকের ইলাহ্‌,,,,,
– সেই এক ইলাহ্‌রই ‘আনুগত্য করবো।
আর আমরা তাঁর কাছেই আত্মসমর্পণকারী’।

তারা ছিল এমন এক জাতি,
যারা অতীত হয়ে গেছে। তারা যা অর্জন করেছে তা তাদের, তোমরা যা অর্জন করেছো তা তোমাদের।
আর তারা যা করত সে সম্বন্ধে তোমাদের প্রশ্ন করা হবে না।

আর তারা বলে, ‘ইয়াহুদী বা নাসারা হও,
সঠিক পথ পাবে’। বলুন, ‘বরং একনিষ্ঠ হয়ে আমরা ইবরাহীমের জীবন-পদ্ধতি অনুসরণ করব এবং তিনি মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন না’।

তোমরা বল, ‘আমরা ঈমান এনেছি আল্লাহর উপর এবং যা নাজীল করা হয়েছে আমাদের উপর ও যা নাজীল করা হয়েছে ইবরাহীম, ইসমাঈল, ইসহাক, ইয়াকূব ও তাদের সন্তানদের উপর
আর যা প্রদান করা হয়েছে মূসা ও ঈসাকে
এবং যা প্রদান করা হয়েছে তাদের রবের পক্ষ হতে নবীগণকে।
আমরা তাদের কারো মধ্যে তারতম্য করি না। আর আমরা তাঁরই কাছে আত্মসমর্পণকারী’।

অনন্তর তোমরা যেরূপ বিশ্বাস স্থাপন করেছ, তারাও যদি তদ্রুপ বিশ্বাস স্থাপন করে তাহলে নিশ্চয়ই তারা সুপথ প্রাপ্ত হবে

আর যদি তারা মুখ ফিরিয়ে নেয়, তবে তারা বিরোধিতায় লিপ্ত ,সুতরাং ,তাদের বিপক্ষে আপনার জন্য আল্লাহ্‌ই যথেষ্ট। আর তিনি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞ। এটাই আল্লাহর রঙ, এবং আল্লাহর রঙ অপেক্ষা আর কার রঙ উত্তম হবে?

আর আমরা একমাত্র তাঁরই অনুগত।

বল, ‘তোমরা কি আমাদের সাথে আল্লাহর ব্যাপারে বিতর্ক করছ,, অথচ তিনি আমাদের রব ও তোমাদের রব?

আর আমাদের জন্য রয়েছে আমাদের আমলসমূহ এবং তোমাদের জন্য রয়েছে তোমাদের আমলসমূহ এবং আমরা তাঁর জন্যই একনিষ্ঠ।

তোমরা কি বলছ – ইবরাহীম, ইসমাঈল, ইসহাক, ইয়াকূব ও তদীয় বংশধরগণ ইয়াহুদী কিংবা নাসারা ছিল?

বলঃ তোমরাই সঠিক জানো না আল্লাহ;
এবং আল্লাহর নিকট হতে প্রাপ্ত সাক্ষ্য যে ব্যক্তি গোপন করছে সে অপেক্ষা কে বেশি যালিম ?

আর তোমরা যা করছ. তা হতে আল্লাহ বেখবর নন।

এ সব লোক যারা ছিল, তারা গত হয়ে গেছে, তাদের জন্য তাদের কামাই আর তোমাদের জন্য তোমাদের কামাই ,আর তারা যা করত সে সম্পর্কে তোমাদেরকে জিজ্ঞেস করা হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *